সর্বশেষ সংবাদ

দৈনন্দিন জীবনে কলার কয়েকটি ব্যবহার

 

খাবার টেবিলে সকাল বা বিকেলের নাস্তায় যে খাবারটি প্রায় সময়ই পাওয়া যায় সেটি হল কলা। জেনে বা না জেনে নিজেদের খাদ্যতালিকায় কলাকে বেছে নেন বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষই। সাধারন জানার বিষয় হিসেবে সবাই জানেন কলা হচ্ছে প্রচুর পরিমাণে আয়রনের উৎস। ভিটামিনে ভরপুর এই খাদ্যটি শিশুদের জন্যেও বেশ উপকারী। তবে এসবের পাশাপাশি বারোমাস হাতের নাগালে থাকা এই ফলটির রয়েছে আরো কিছু অসাধারন গুণ যা হয়তো আপনি জানেনই না! জেনে নিন কলার এমন কিছু উপকারিতার কথা।

Banana
মাংসকে উপাদেয় করতে
পাকা কলা প্রায়শই আমরা খেয়ে থাকি। কিন্তু আপনি জানেন কি কিছু দেশে মাংস রান্নার সময় সেটাকে কলার পাতা দিয়ে মোড়ানো হয় যাতে মাংস আরো বেশি নরম আর উপাদেয় হয়? শুধু পাতা নয়, কাঁচা কলাও আপনার রান্নার মাংসটিকে করে তুলতে পারে অনেক বেশি সুস্বাদু।
চুলের যত্নে
দোকানের রাসায়নিক দ্রব্যকে বাদ দিয়েও চুলকে আপনি সুন্দর করে তুলতে পারেন কলার মাধ্যমে। কলাতে রয়েছে বি ভিটামিন ও ফোলেট। আর তাই কলা, দুধ আর মধু মিশিয়ে এক সঙ্গে আপনার চুলে লাগান আর ২০ মিনিট অপেক্ষা করে দেখুন। আপনার চুল হয়ে উঠবে প্রাকৃতিকভাবেই আকর্ষণীয় আর সুস্থ। ত্বকের যত্নে
কলার ভেতরে ত্বককে উজ্জ্বল করে তোলার মতো প্রাকৃতিক উপাদান রয়েছে। রয়েছে ভিটামিন ‘এ’ যা কিনা ত্বকের রঙকে ফিরিয়ে আনে। আর আছে ভিটামিন ই, যা কিনা সহজেই ত্বককে সুরক্ষিত করে নানারকম সমস্যা থেকে। আর তাই কলা বেটে সেটাকে ত্বকের উপর ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। দেখবেন খুব তাড়াতাড়িই আকর্ষণীয় আর উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে আপনার ত্বক।
ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াকে প্রতিরোধ
কলার ভেতরে আছে প্রোবায়োটিকস। যেগুলো শরীরের ভেতরের নির্দিষ্ট পরিমান ব্যাকটেরিয়াকে নির্দিষ্টই রাখে আর প্রতিরোধ করে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াকে শরীরের ভেতরে আসতে। আর এটা করে কলার ভেতরে থাকা এফওএস। এফওএস খুব সহজেই প্রাকৃতিকভাবে শরীরের ব্যাকটেরিয়াগুলোকে ঠিক পর্যায়ে রেখে শরীরকে সুস্থ রাখে।
উদ্বিগ্নতা কমাতে
কলার ভেতরে আছে পটাশিয়াম যা কিনা উদ্বিগ্নতা কমাতে সাহায্য করে আর আরো ভালো করতে সাহায্য করে। এতে করে অতিরিক্ত রক্তচাপ কমে যায় এবং মানসিক নানারকম সমস্যা খানিকটা হলেও স্থিতিশীল অবস্থায় চলে আসে। আর এটা কলা করে শরীরের ভেতরে চাপসৃষ্টিকারী হরমোনগুলোর নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে।
ওজন কমাতে
কলা আমাদের ভেতরে চিনির প্রতি আগ্রহ কমিয়ে দেয়। একটি মাঝারি আকৃতির কলায় ১০৫ ক্যালোরি থাকে। যা আরো অনেক বেশি ক্যালোরি নেয়া থেকে আমাদেরকে বিরত রাখে। এছাড়াও কলাতে রয়েছে ক্রোমিয়াম। যেটা শরীরের ক্যালোরিকে দ্রুত ক্ষয় করতে সাহায্য করে থাকে। ফলে শরীরের ওজন অনেক বেশি কমে যায়।
কাজ করার আগ্রহ বাড়ায়
কলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘সি’। আর ভিটামিন ‘সি’ শরীরের মাংসপেশিকে অনেক বেশি শক্তিশালী করে আর কাজের প্রতি আগ্রহী করে তোলে। ফলে অনেক বেশি আর কঠিন কাজ করতেও সমস্যা হয়না কোন।
ফাটা চামড়া ঠিক করতে
পায়ের চামড়া ফেটে যাওয়া অনেকেরই জন্যে অনেক বেশি সমস্যার। সারা বছরই অনেকের পায়ে গোড়ালি ফাটা থাকে। আর কলা এ ক্ষেত্রে ময়েশ্চারাইজারের কাজ করে। খানিকটা কলা নিয়ে পায়ের ফেটে যাওয়া গোড়ালিতে মেখে রাখুন। খানিক বাদেই দেখবেন পা একদম ঠিকঠাক হয়ে গিয়েছে। একদম আগের মতো।
ঘুমের সহায়ক
ঘুমাতো সমস্যাবোধ করছেন বা অনিদ্রাতে ভুগছেন? কলা হতে পারে এক্ষেত্রে আপনার জন্যে যথেষ্ট উপকারী। কলাতে থাকে প্রচুর পরিমাণে ট্রিপটোফান, যেটা অনেক বেশি এমিনো এসিড উৎপন্ন করে। আর এমিনো এসিড মস্তিষ্কে প্রচুর পরিমাণে সেরোটোনিন উৎপন্ন করে। যেটি ঘুম এনে দেয়ার জন্যে অনেক বেশি কার্যকর।
মাইগ্রেনের ব্যথা কমাতে
কলাতে থাকে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেশিয়াম। আর ম্যাগনেশিয়াম মাইগ্রেনের প্রচণ্ড ব্যথা কমাতে সাহায্য করে খুব তাড়াতাড়ি। তাই কলা হতে পারে আপনার মাইগ্রেনের ব্যথারও নিরাময়ক।

আরও পড়ুন



Related posts

মন্তব্য করুন