অপহরন অভিযোগের ২২দিন কেটে গেলে ও প্রধান আসামিকে ধরতে পারেনি নবাবগঞ্জ থানা পুলিশ।

 BRAND BAZAAR এ LED / 3D/ Smart / 4K TV 65% ডিস্কাউন্ট

 

মোঃ নাজমুল হোসেন, স্টাফরিপোর্টার, 24khobor.com

ঢাকা নবাবগঞ্জ উপজেলার, মাঝির কান্দা গ্রাম থেকে গত ৪মে ১২ বছরের ৬ষ্ঠ শ্রেনী পড়ুয়া এক কিশোরীকে অপহরন করা হয়। নবাবগঞ্জ থানা পুলিশ ১১ দিন পর অপহিত মেয়েটিকে উদ্ধার করে।

অপহিত কিশোরীর নাম: কবিতা আক্তার , পিতা: শেখ কবির, মাতা: রেহেনা বেগম , চারো দিকে তখন ৪র্থ ধাপের নির্বাচনের আমেজ বইছে। সবাই ব্যাস্ত সময় কাটাচ্ছে ৭ই মে নির্বাচন নিয়ে। এরই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে অপহরন করা হয় কিশোরীকে। কবিতার পরিবার নবাবগঞ্জ থানায় ইমরান (১৮) পিতা:তমিজদ্দিন গ্রাম: পালামগঞ্জকে প্রধান আসামী করে ৬ থেকে ৭ জনের নামে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা করা করে।মামলায় বাকী আসামীরা হলেন, প্রধান আসামীর বড় ভাই মিরাজ(২৫) পিতা: তমিজদ্দিন গ্রাম: পালামগঞ্জ , তার ভাবী রেহেনা২৮ বেগম সহ অগ্যাত ৪ থেকে ৫ জন।আসামীদের মধ্যে ২ জন কে আটক করতে সক্ষম হয় নবাবগঞ্জ থানা পুলিশ। দ্রুত বিচার আইনে তাদের মধ্যে একজনকে কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।কিন্তু অপহরনের ২২ দিন কেটে গেলে ও প্রধান আসামী মিরাজ কে গ্রেপ্তার করতে পারেনি নবাবগঞ্জ থানা পুলিশ। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইদুর রহমান মুঠো ফোনে 24khobor.com কে বলেন আমরা আসলে আসামীদেরকে ধরতে চেষ্টা করে যাচ্ছি। কিন্তু বাস্তবে ঘটনা উল্টো। পুলিশ এ ব্যপারে নির্জীব ভূমিকা পালন করছে। কিন্তু গোপন সংবাদের মাধ্যমে 24khobir.com জানতে পেরেছে যে, বিগ টিম বিষয়টিকে ধামা চাপা দেওয়ার জন্য নানা রকম পাইতারা গ্রহন করতেছে।এদিকে নবাবগঞ্জ থানা ভূমি অফিসার ফারজানা আক্তারকে এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে মুঠো ফোনে 24khobor.com কে বলেন আমার কাছে বর্তমানে নতুন কোন তথ্য নেই। তবে আমরা আদালতের নির্দেশের জন্য অপেক্ষায় আছি। আদালত আমদের কে যে নির্দেশ দিবে আমরা সেই মোতাবেক কাজ করবো।


Related posts

মন্তব্য করুন