ছুটির দিনে বেড়াতে পারেন রাজশাহীর দর্শনীয় স্থানগুলোতে

শীতের ছুটিতে রাজশাহীর দর্শনীয় স্থানগুলো ঘুরে আসতে পারেন। যেতে পারেন রাজশাহীর ঐতিহাসিক স্থানগুলো দেখতে। তেমনি কয়েকটি দর্শনীয় ও ঐতিহ্যবাহী স্থানের বর্ণনা দেওয়া হলো:


পুঠিয়া রাজবাড়ী: ১৮৯৫ সালে মহারানী হেমন্তকুমারী দেবী আকর্ষনীয় ইন্দো ইউরোপীয় স্থাপত্যরীতিতে আয়তাকার দ্বিতল বর্তমান রাজবাড়ীটি নির্মাণ করেন। ভবনের সম্মুখ ভাগের স্তম্ভ, অলংকরন, কাঠের কাজ, কক্ষের দেয়ালে ও দরজার উপর ফুল ও লতাপাতার চিত্রকর্ম চমৎকার নির্মাণ শৈলীর পরিচয় বহন করে। রাজবাড়ীর ছাদ সমতল, ছাদে লোহার বীম, কাঠের বর্গা এবং টালি ব্যবহৃত হয়েছে। নিরাপত্তার জন্য রাজবাড়ির চারপাশে পরিখা খনন করা হয়েছিল।

ছোট আহ্নিক মন্দির: পুঠিয়া রাজবাড়ীর দক্ষিণ পাশে এ মন্দির অবস্থিত। আয়তাকার নির্মিত উত্তর দক্ষিণে লম্বা এ মন্দিরেরপূর্বদিকে পাশাপাশি তিনটি এবং দক্ষিণ দেয়ালে ১টি খিলান দরজা আছে। মন্দিরের ছাদ দোচালা আকৃতির এবং আংশিক বাকানো। মন্দিরটি আঠার খ্রিস্টাব্দে প্রেম নারায়ণ কর্তৃক নির্মিত বলে জানা যায়।

বড় শিব মন্দির: পুঠিয়া বাজারে প্রবেশ করতেই হাতের বাম পাশে শিবসাগর নামক দীঘির দক্ষিণ পাড়ে বড় শিব মন্দির অবস্থিত। ১৮২৩ সালে নারী ভূবনময়ী দেবী মন্দিরটি নির্মাণ করেন। উচু মঞ্চের উপর নির্মিত মন্দিরটির দক্ষিণ দিকে সুপ্রশস্ত সিড়িসহ প্রধান প্রবেশপথ। মন্দিরের চারপাশে টানা বারান্দা এবং বারান্দায় রয়েছে পাঁচটি করে খিলান প্রবেশপথ। মন্দিরের উত্তর পাশে অবস্থিত দীঘিতে নামার জন্য বাঁধানো ঘাট রয়েছে। চারকোণে চারটি ও কেন্দ্রস্থলে একটি চূড়া আছে।
ছোট শিব মন্দির: বর্গাকারে নির্মিত ছোট আকৃতির এ মন্দিরটি রাজবাড়ী হতে ১০০ মিটার দক্ষিণে পুঠিয়া-আড়ানী সড়কের পূর্বপাশে অবস্থিত। মন্দিরের দক্ষিণ দেয়ালে ১টি মাত্র খিলান প্রবেশপথ আছে। মন্দিরের কার্ণিশগুলো আংশিক বাকানো এবং পোড়ামাটির অলংকরণদ্বারা সজ্জিত।

দোল মন্দির: পুঠিয়া বাজারের মধ্যে অবস্থিত বর্গাকারে নির্মিত চারতলা বিশিষ্ট একটি সুদৃশ্য ইমারত। মন্দিরের চতুর্থ তলার উপরে আছে গম্ভুজাকৃতির ছাদ। পুঠিয়ার পাঁচআনি জমিদার ভুবেন্দ্রনারায়ণ রায় ১৭৭৮ খ্রিস্টাব্দে মন্দিরটি নির্মাণ করেন।

জগন্নাথ/ রথ মন্দির: বড় শিব মন্দির সংলগ্ন পূর্বদিকে শিবসাগর নামক দীঘির দক্ষিণ পাশে জগন্নাথ বা রথ মন্দির অবস্থিত। দোতলার কক্ষটি ছোট এবং চারপাশে উন্মুক্ত প্রবেশদ্বার রয়েছে। মন্দিরটি ১৮২৩ খ্রিস্টাব্দে রানী ভূবনময়ী কর্তৃক নির্মিত বলে জানা যায়।

চারআনি জমিদারবাড়ী: পাঁচআনি রাজবাড়ী থেকে প্রায় ১২৫ মিটার পশ্চিমে শ্যামসাগর দিঘীর পশ্চিম পাড়ে পুঠিয়ার চারআনী জমিদার বাড়ী অবস্থিত।

ছোট গোবিন্দ মন্দির: বড় আহ্নিক মন্দিরের উত্তর পাশে বর্গাকারে নির্মিত মন্দিরটি ছোট গোবিন্দ মন্দির নামে পরিচিত। এক কক্ষ বিশিষ্ট মন্দিরের পূর্ব ও দক্ষিণ দিকে সরু বারান্দা, দক্ষিণ দিকে তিনটি এবং পূর্ব দিকে একটি খিলান প্রবেশ পথ আছে। মন্দিরের চারপাশের কর্ণারে ও দরজার দুপাশ পোড়ামাটির ফলক দ্বারা নান্দনিকভাবে সজ্জিত। এটির কার্নিশ ধনুকের ন্যায় বাকানো ও উপরে একটি ফিনিয়েল বিশিষ্ট চুড়া আকৃতির ছাদ আছে। দেয়ালের ফলকগুলোতেও যুদ্ধের কাহিনী, বিভিন্ন হিন্দু দেব দেবীর চিত্র, সংস্কৃত ভাষায় রচিত পোড়ামাটির ফলক ইত্যাদি দ্বারা সজ্জিত। এ মন্দিরটি খ্রিস্টীয় ১৭/১৮ শতকে নির্মিত বলে জানা যায়।
হাওয়া খানা: এটি পুঠিয়া বাজার থেকে তিন কিলোমিটার পশ্চিমে একটি পুকুরের মধ্যবর্তী স্থানে হাওয়াখানা অবস্থিত। দ্বিতল এ ইমারতের নীচতলার আর্চযুক্ত। এ ইমারতের দক্ষিণ পাশে দোতালায় উঠার জন্য সিড়ি আছে। পুঠিয়া রাজবাড়ীর সদস্যরা রাজবাড়ী থেকে রথ বা হাতীযোগে, পুকুরে নৌকায় চড়ে এসে অবকাশ যাপন এবং পুকুরের খোলা হাওয়া উপভোগ করতেন বলে জানা যায়।

কৃষ্ণপুর মন্দির: পুঠিয়া বাজার থেকে দেড় কিলোমিটার পশ্চিমে কৃষ্ণপুর গ্রামে খোলা মাঠে অবস্থিত মন্দিরটি। প্রবেশপথের উপরে ও দুপাশে পোড়ামাটির ফলকদ্বারা চমৎকারভাবে সজ্জিত।

শিব মন্দির: পুঠিয়া বাজারের ১ কিলোমিটার পশ্চিমে কৃষ্ণপুর গ্রামে ছোট আকৃতির এ মন্দিরটি অবস্থিত। স্থানীয়ভাবে খিতিশ চন্দ্রের মঠ হিসাবে পরিচিত হলেও প্রকৃতপক্ষে এটি একটি শিব মন্দির। বর্গাকারে নির্মিত মন্দিরের দক্ষিণ ও পূর্ব দেয়ালে একটি করে খিলান দরজা আছে।

কেষ্ট খেপার মঠ: বড় শিব মন্দির থেকে আনুমানিক ৫০০ মিটার পশ্চিমে রাম জীবনপুর গ্রামে অবস্থিত এ মন্দিরটি।  স্থানীয়ভাবে কেষ্ট খেপার মঠ নামে পরিচিত। বর্গাকারে নির্মিত এর দক্ষিণ দেয়ালে একটি মাত্র প্রবেশপথ আছে এবং উপরে ২৫টি মৌচাকৃতির ছাদ দ্বারা আবৃত। মন্দিরটি ১৮শ শতকের শেষ দিকে নির্মিত বলে ধারনা করা যায়।
পুঠিয়া যাওয়ার মাধ্যম: রাজশাহী জেলা সদর হতে ৩২ কিঃমিঃ উত্তর- পূর্বে নাটোর মহাসড়ক অভিমুখে পুঠিয়া অবস্থিত। বাসে করে দেশের যে কোন স্থান হতে পুঠিয়া আসা যায় এবং ট্রেনে করে নাটোর অথবা রাজশাহী নেমেও সড়কপথে সহজে আসা যায়। পুঠিয়া বাসস্ট্যান্ড থেকে মাত্র ১ কি:মি: দূরে অবস্থিত পুঠিয়া রাজবাড়ী। অটোরিক্সাতে মাত্র ১০ টাকা ভাড়া লাগে।

বাঘা মসজিদ রাজশাহী জেলা সদর হতে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে বাঘা উপজেলায় অবস্থিত একটি ঐতিহাসিক মসজিদ। সুলতান নাসিরউদ্দীন নসরাত শাহ ১৫২৩ খ্রিস্টাব্দে মসজিদটি প্রতিষ্ঠা করেন। মসজিদটি ১৫২৩-১৫২৪ সালে হুসেন শাহী বংশের প্রতিষ্ঠাতা আলাউদ্দিন শাহের পুত্র সুলতান নসরাত শাহ নির্মাণ করেন । পরবর্তীতে বিভিন্ন সময় এই মসজিদের সংস্কার করা হয় এবং মসজিদের গম্বুজগুলো ভেঙ্গে গেলে ধ্বংসপ্রাপ্ত মসজিদে নতুন করে ছাদ দেয়া হয় ১৮৯৭ সালে।

বাঘা মসজিদ যাওয়ার মাধ্যম: পুঠিয়া বাসস্ট্যান্ড থেকে প্রায় ২০ কিঃমিঃ দূরে অবস্থিত বাঘা মসজিদ। বাঘা মসজিদ যেতে হলে প্রথমে পুঠিয়া থেকে বাসে বা অটো করে আড়ানি যেতে হবে। ভাড়া ১৫ থেকে ২০ টাকা। এরপর অটো করে সোজা বাঘা মসজিদ। ভাড়া ঐ একই ১৫ থেকে ২০ টাকা। পর্যটকদের থাকার জন্য আছে জেলা পরিষদ ডাকবাংলো।
বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর: বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর রাজশাহী শহরে স্থাপিত তথা বাংলাদেশের প্রথম জাদুঘর। এটি প্রত্ন সংগ্রহে সমৃদ্ধ। এই প্রত্ন সংগ্রহশালাটি ১৯১০ খ্রিস্টাব্দে ব্যক্তিগত উদ্যোগে স্থাপিত হয়েছিল। বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর টি বর্তমানে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা করে।

বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর রাজশাহী শহরের কেন্দ্রস্থল সাহেব বাজার হেতেম খাঁতে অবস্থিত। প্রত্নতত্ত্ব সংগ্রহের দিক থেকে এটি দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম সংগ্রহশালা। বরেন্দ্র জাদুঘর প্রতিষ্ঠায় নাটোরের দিঘাপাতিয়া রাজপরিবারের জমিদার শরৎ কুমার রায়, আইনজীবী অক্ষয়কুমার মৈত্রেয় এবং রাজশাহী কলেজিয়েট স্কুল এর শিক্ষক রামপ্রসাদ চন্দ্রের উল্লেখযোগ্য আবদান রয়েছে।

১৯১০ খ্রিস্টাব্দে তারা বাংলার ঐতিহ্য ও নিদর্শন সংগ্রহ ও সংরক্ষণের জন্য বরেন্দ্র অনুসন্ধান সমিতি গঠন করেন। ঐ বছরে তারা রাজশাহীর বিভিন্ন স্থানে অনুসন্ধান চালিয়ে ৩২টি দুষ্প্রাপ্য নিদর্শন সংগ্রহ করেন। এই নিদর্শনগুলো সংরক্ষণ করার জন্য শরৎ কুমার রায়ের দান করা জমিতে জাদুঘরটির নিজস্ব ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হয়। নির্মাণ শেষ হয় ১৯১৩ খ্রিস্টাব্দে। একই বছরের ১৩ নভেম্বর বাংলার তৎকালীন গভর্নর কারমাইকেল জাদুঘরটি উদ্বোধন করেন।

১৯১১ খ্রিস্টাব্দে কলকাতা জাদুঘর হঠাৎ এতে সংরক্ষিত সকল নিদর্শন দাবি করে বসে। তৎকালীন গভর্নর কারমাইকেলের প্রচেষ্টায় ১৯১৩ খ্রিস্টাব্দে ১৪ ফেব্রুয়ারি তারিখে জারিকৃত একটি সরকারি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে বরেন্দ্র জাদুঘরকে এর নিদর্শন সংগ্রহ ও সংরক্ষণের ব্যপারে স্বাধীকার প্রদান করা হয়।
নিদর্শনসমূহ: বরেন্দ্র জাদুঘরের সংগ্রহ সংখ্যা ৯ হাজারেরও অধিক। এখানে হাজার বছর আগের সিন্ধু সভ্যতার নিদর্শন রয়েছে। মহেনজোদারো সভ্যতা থেকে সংগৃহীত প্রত্নতত্ত, পাথরের মূর্তি, খ্রিষ্ট্রীয় একাদশ শতকে নির্মিত বুদ্ধ মূর্তি, ভৈরবের মাথা, গঙ্গা মূর্তিসহ অসংখ্য মূর্তি এই জাদুঘরের অমূল্য সংগ্রহের অন্তর্ভুত। মোঘল আমলের রৌপ্র মুদ্রা, গুপ্ত সম্রাট চন্দ্রগুপ্তের গোলাকার স্বর্ণমুদ্রা, সম্রাট শাহজাহানের গোলাকার রৌপ্য মুদ্রা বিশেষ ভাবে উল্যেখয়োগ। এখানে প্রায় ৫০০০ পুঁথি রয়েছে যার মধ্যে ৩৬৪৬টি সংস্কৃত আর বাকিগুলো বাংলায় রচিত পাল যুগ থেকে মুসলিম যুগ পযর্ন্ত সময় পরিধিতে অঙ্কিত চিত্রকর্ম, নূরজাহানের পিতা ইমাদ উদ দৌলার অঙ্কিত চিত্র এখানে রয়েছে।

বরেন্দ্র জাদুঘর পরিদশনের এর সময়সূচি: শনিবার থেকে বুধবার সকাল ১০ থেকে বিকাল ৪.৩০ টা পর্যন্ত। শুক্রবার দুপুর ২.৩০ থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত। বৃহস্পতিবার বন্ধ।

এছাড়াও এপ্রিল থেকে অক্টোবর সকাল ১০ থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত। নভেম্বর থেকে মার্চ সকাল ১০ থেকে বিকাল ৪.৩০ টা পর্যন্ত।

বরেন্দ্র জাদুঘর যাওয়ার মাধ্যম: বরেন্দ্র জাদুঘর টি অবস্থিত রাজশাহী শহরে সাহেব বাজার এলাকায়। রাজশাহী শহর বা রাজশাহী রেল স্টেশন থেকে বরেন্দ্র জাদুঘরে যাওয়া যায়। ভাড়া ১০ থেকে ১৫ টাকা লাগবে।

 



Related posts

মন্তব্য করুন