সর্বশেষ সংবাদ

দোহার থেকে ৩ জন জেএমবি সদস্য গ্রেফতার-গমাধ্যমে তোলপাড়

 মো:আসাদ মাহমুদ

ঢাকা জেলার দোহার উপজেলায় দহ্মিন জয়পাড়া মাঝিপাড়া গ্রাম থেকে গতকাল জঙ্গী সন্দেহে ৩জন শিহ্মার্থীকে আটক করেছে আইন শৃংখলা বাহিনী। তবে তারা ছিল মূলত জেএমবি সদস্য বলে জানান ঢাকা জেলা আইন শৃংখলা রহ্মাকারী বাহিনী র‍্যাব।

দোহার থেকে ৩জন জেএমবি সদস্য গ্রেফতার-গমাধ্যমে তোলপাড়

আজ দুপুর ২টার সংবাদে দেশের কয়েকটি গণমাধ্যম টিভি চ্যানেলের সংবাদে তাদের জঙ্গী সদস্য বলে ঘোষনা করা হয়। সাথে-সাথে তা দেখার পরে তোলপাড় শুরু হয়ে যায় পুরো দোহার জুড়ে।আতংকে ভীত্ হয়ে পরেছে পুরো দোহার বাসি।যানা যায় গতকাল সকাল ৯টার সময় সাদা পোশাক পরিহিত এক দল আইন শৃংখলা রহ্মাকারী বাহিনী তাদের পুরো বাড়িটি ঘেরাও করে।পরে বাড়ি পাহারায় বাড়ির পেছন দিক থেকে দেওয়াল টপকিয়ে পেছনের দরজা দিয়ে বাড়িতে ঢুকে তাদের হাতে-নাতে গ্রেফতার করা হয়।গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে জিহাদি বই ও দেশি অস্রসহ তাদের হাতেনাতে আটক করা হয়।তারা সারোয়ার-তামিম গ্রুপের ৪জেএমবি সদস্য।আজ দুপুর ১২টায় রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য যানা যায়।আটকৃত জেএমবি সদস্যগন দহ্মিন জয়পাড়া মাঝিপাড়া গ্রামের আবুবকর বাবুল(৪৭)প্রবাসী তার বড় ছেলে মেজবাহ(২০) তার ছোট ছেলে মাহফুজ(১৫)।তাদের বাড়ি থেকে আটক করার সময় তাদের ছিল তাদের খালাত ভাই হাসিবুল হাসান(১৯)নারিশা নিবাসীতারা প্রত্যেকেই শিহ্মার্থী।মেজবাহ জয়পাড়া মাহমুদিয়া আলিম মাদরাসা থেকে আলিম পাশ করেছে,তার ছোট ভাই মাহফুজ জয়পাড়া টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এইবার এস.এস.সি পরিহ্মা দিয়েছে।তাদের খালাত ভাই হাসিবুল হাসান পদ্মা কলেজের ডিগ্রী ১ম বর্ষের ছাএ।তাদের সাথে ফয়সাল নামে আরেক জনকে আটক করা হয়।পরে তাদের জিঞ্জাজাসাবাদ করার পর তারা জেএমবি সদস্য বলে স্বীকারোক্তি দেয় বলে জানানো সংবাদ সম্মেলনে।আটক দুই জঙ্গীর মা মাকসুদা খানম(৩৯)জানান”নাম না বলা অঞ্জাত ৩/৪জন লোক সাধারণ পোশাক পরে বাড়ির পেছন দিক থেকে এসে আমার দুই ছেলে ও আমার ভাগিনাকে তাদের রুম থেকে অস্রের মুখে রেখে মোট ১৮/২০জন লোক একটি মাইক্রোতে করে তুলে নিয়ে যায়।যাবার সময় আমায় আমাদের মেহমান রুমে তালা মেরে আটকিয়ে রেখে যায় পরে আমি পেছন দরজা দিয়ে বের হয়ে আমার বাবার বাড়িতে গিয়ে সেখান থেকে এসে দোহার থানায় একটি অপহরন মামলা করি।পরে দোহার থানা পুলিশ আমায় আমার দুই ছেলেকে খুজে ফিরিয়ে আনার আশা ব্যাক্ত করে”।কিন্তু পরে টিভি সংবাদের কথা ও তাদের স্বীকারোক্তির কথা বললে তিনি বলেন “আমার দুই ছেলে এই সব জঙ্গীবাদের সাথে কোনো কিছুতেই কোনা সম্পৃক্ততা নেই তারা নির্দোষ”।এর পর অঝর কান্নায় ভেঙ্গে পরেন তিনি।এ বিষয়ে দোহার থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি সিরাজুল ইসলাম জানান”গোপন তথ্য ও তাদের চলাচলে প্রকৃত প্রমান সাপেহ্মেই তাদের আটক করা হয়েছে। এ নিয়ে গতকাল থেকেই দোহারে এক আতংক ও থমথমে পরিদেশ বিরাজ করছে।পরে দুপুর ২টায় সময় সংবাদ নামে একটি বে-সরকারী টিভি চ্যানেলে যখন সবাই টিভি স্কিনে দোহারের এই ৪জেএমবি সদস্যদের দেখতে পান তখন পুরো দোহার জুড়ে এক তোলপাড় শূরু হয়।তাদের কারোই জানা ছিল না যে ছদ্মবেশি এই শিহ্মার্থীরাই ছিল জেএমবি সদস্য।রাস্ত-ঘাটে এখন আতংকে রয়েছে দোহার-বাসির,তারা চায় জঙ্গীমুক্ত একটি সুজলা-সুফলা বাংলাদেশ যেখানে নিশ্চিন্তে সবাই বসবাস করতে পারবে।



Related posts

মন্তব্য করুন