অবিশ্বাস্য মেসি-সুয়ারেজ, দুর্দান্ত বার্সা

 

Image may contain: 2 people, people smiling, people sitting and text

সেভিয়া কেন তার ‘প্রিয়’ প্রতিপক্ষ, সেটি আরেকবার দেখালেন লিওনেল মেসি। নিষেধাজ্ঞার কারণে আগের ম্যাচে খেলতে পারেননি। বুধবার রাতে সেভিয়ার বিপক্ষে মাঠে ফিরেই জ্বলে উঠলেন, করলেন জোড়া গোল। ছন্দে থাকা লুইস সুয়ারেজও গোল করলেন একটি। তাতে বার্সেলোনা পেল দুর্দান্ত এক জয়। ৩-০ গোলের জয়ে সেভিয়া বাধা সহজেই পেরিয়ে গেল লুইস এনরিকের দল।

অবিশ্বাস্য মেসি-সুয়ারেজ, দুর্দান্ত বার্সা

ন্যু ক্যাম্পে ম্যাচের শুরু থেকেই একের পর এক আক্রমণ শানিয়েছে বার্সেলোনা। স্বাগতিকরা চতুর্থ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারত, মেসি পেতে পারতেন দুর্দান্ত এক গোল। কিন্তু ২৫ গজ দূর থেকে নেওয়া মেসির বাঁ পায়ের বুলেট গতির শট ক্রসবারে লেগে ফেরে। ষোড়শ মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ হারায় সেভিয়া। বক্সের ভেতরে বল পেয়েছিলেন স্টিভেন এন’জনজি। সামনে শুধু গোলকিপার। কিন্তু বল বাইরে দিয়ে মারেন ফরাসি মিডফিল্ডার।

এরপর ২৫ থেকে ৩৩, আট মিনিটের একটা ঝড় বয়ে যায় সেভিয়ার ওপর দিয়ে! দারুণ এক গোলে বার্সাকে এগিয়ে দেন সুয়ারেজ। গোলের জোগানদাতা কে? মেসি! ডানদিক থেকে সেভিয়ার দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বক্সের ভেতর ক্রস দেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। সেভিয়ার এক খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে সেটি ওঠে যায় আরেকটু ওপরে। সেখান থেকেই দারুণ এক ওভারহেড কিকে বল জালে জোড়ান উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার।

তিন মিনিট পর মেসি নিজেই গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলেন। পোস্টের বামপাশ থেকে নেইমার ডানপাশে বল বাড়ান সুয়ারেজকে। উরুগুইয়ান তারকা আবার বল দেন মাঝে থাকা মেসিকে। পাঁচবারের ফিফা বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের ডান পায়ের জোরালো শট খুঁজে নেয় সেভিয়ার জাল।

৩৩ মিনিট মেসি পূর্ণ করেন জোড়া গোল। কর্নার থেকে আসা বল হেডে বিপদমুক্ত করতে চেয়েছিলেন ভিতোলো, কিন্তু পারেননি। দারুণ এক ভলিতে সার্জিও রিকোকে পরাস্ত করেন মেসি। সেভিয়ার বিপক্ষে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এটি মেসির ২৯তম গোল। আর কোনো দলের বিপক্ষে এত গোল নেই বার্সেলোনা ফরোয়ার্ডের। এবার বুঝলেন তো কেন সেভিয়া মেসির ‘প্রিয়’ প্রতিপক্ষ!

প্রথমার্ধে আট মিনিটেই তিন গোল করা বার্সা দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য সেভিয়ার জালে আর বল জড়াতে পারেনি। কোনো গোল শোধ করতে পারেনি সেভিয়াও। উল্টো যোগ করা সময়ে নেইমারকে পাঁচ সেকেন্ডের মধ্যে দুবার লাথি মেরে লাল কার্ড দেখেন ভিতোলো। ন্যু ক্যাম্পে লিগে টানা অষ্টম জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে লুইস এনরিকের দল।

এই জয়ে রিয়াল মাদ্রিদকে টপকে ঘণ্টা দুইয়েকের জন্য লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠেছিল বার্সেলোনা। লেগানেসকে হারিয়ে সেটি আবার পুনরুদ্ধার করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। ৩০ ম্যাচে বার্সার পয়েন্ট ৬৯। এক ম্যাচ কম খেলা রিয়ালের ৭১ পয়েন্ট।



Related posts

মন্তব্য করুন