সর্বশেষ সংবাদ

ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ দোহার-নবাবগঞ্জের মানুষ

 আয়েশা সিদ্দিকীঃ
ঢাকার দোহার- নবাবগঞ্জ উপজেলায় পর পর কাল ঘূর্ণিঝড়ে লন্ডভন্ড হয়েছে গ্রামের পর গ্রাম। যার ফলে বিপুল সংখ্যক এলাকায় বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পরে। অতঃপর যাদের ঘরে বিদ্যুৎ আছে তাদের পোহাতে হচ্ছে ঘন ঘন লোডশেডিং। সারা দেশের ন্যায় জৈষ্ঠের তীব্র তাপে অতিষ্ঠ দোহার-নবাবগঞ্জের মানুষ।
ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ দোহার-নবাবগঞ্জের মানুষ
বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছেন, সূর্য বিমূখ রেখার উপর অবস্থান করার ফলে আগামি ৩ দিন এশিয়ার বেশির ভাগ জায়গায় তাপমাএা বৃদ্ধি পাবে। এ সময় তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠানামা করবে। যার ফলে ডি-হাইড্রেশন সহ হিট স্ট্রোক হবার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে । দিনে যেমন খরতাপ তেমনি রাতে বইছে গরম হাওয়া। পুরোপুরি গরম কমতে অপেক্ষা করতে হবে জুনের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত। ওই সময় মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে ভারী বৃষ্টি হতে পারে। গতকাল ঢাকায় তাপমাএা ছিল ৩৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অত্যাধিক তাপমাত্রায় অস্থির দোহার-নবাবগঞ্জবাসী। গত দুইদিন ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ বাড়িঘর,গাছপালা ও বৈদ্যুতিক খুঁটিসহ গ্রামাঞ্চলের বৈদ্যুতিক ব্যবস্থার চরম বিপর্যয় ঘটে। ফলে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে দোহার-নবাবগঞ্জের বিভিন্ন এলাকা। এতে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয় ফসলি গাছপালা ও জমির খাদ্যশস্য। দোহার জোনাল অফিস ও নবাবগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি সুত্রে জানা যায়,গত দুইদিনের ঘূর্ণিঝড়ে দোহার-নবাবগঞ্জের প্রায় ৪০ টি এলাকায় বৈদ্যুতিক তারের উপর গাছপালা ভেঙে পড়লে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে দোহার-নবাবগঞ্জের বিভিন্ন এলাকা। ঘটনার পরদিন বিদ্যুৎ কিছুটা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে। কিছু কিছু এলাকায় ক্ষতির পরিমান বেশি হওয়ায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করতে পারছে না বিদ্যুৎ বিভাগ। ফলে ঘনঘন লোডশেডিং এর কারনে জনজীবনে নেমে এসেছে চরম বিপর্যয়। এতে শিক্ষার্থীসহ নানা বয়সী মানুষ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে । তাছাড়া বাড়িতে বাড়িতে বৈদ্যুতিক মিটার ও তার ছিঁড়ে পড়ায় বিদ্যুৎ বিভাগের জনবলের উপর কাজের চাপ বেড়ে যাওয়ায় নাভিশ্বাস দেখা দিয়েছে। অত্যাধিক গরমে বিদ্যুৎ শ্রমিকরাও স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে পারছে না। ফলে বিদ্যুৎ স্বাভাবিক সরবরাহ করতে ব্যাহত হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে ,গরম কিছুটা কমলে বিদ্যুৎ স্বাভাবিক সরবরাহ করা সম্ভব হবে বলেও ধারনা করছে জ্ঞানবিদরা।



Related posts

মন্তব্য করুন