সর্বশেষ সংবাদ

নবাবগঞ্জে মেয়ে অপহরণের অভিযোগে তিন ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা

No automatic alt text available.

ঢাকার নবাবগঞ্জে মেয়ে অপহরণের অভিযোগে তিন ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছে বাবা। তবে মামলার ১১ দিনেও আসামী ধরতে পানেনি পুলিশ। মামলার আসামীরা হলেন, উপজেলার জয়কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য রাশেদ স¤্রাট, ৩নং ওয়ার্ডের সদস্য মো. মাবুল ও সংরক্ষিত (১,২,৩) নং ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য রওশনারা বেগম।

 নবাবগঞ্জে মেয়ে অপহরণের অভিযোগে তিন ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা
মামলার এজাহারে সূত্রে জানা যায়, মামলার বাদী নাবালিকার বাবা মো. হান্নান শেখ ঢাকায় চাকুরী করেন। তার স্ত্রী বিদেশে চাকুরীতে থাকার মেয়ে পপি আক্তার (১৫) কে জয়কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের তিতপালদিয়ায় দাদির সাথে থাকতো। গত ৭মে সকালে স্থানীয় ইউপির মহিলা সদস্য রওশনারা বেগম পপিকে ডেকে নিয়ে যায়। কিন্তু সারাদিনেও সে ফিরে আসেনি। খোঁজ করে জানা যায়, পপিকে স্থানীয় রাশেদ স¤্রাট ও মাবুল নামে দুই ইউপি সদস্য নিয়ে গেছে। পরে মোবাইল ফোনে জানানো হয় তাকে অপহরণ করা হয়েছে এবং মুক্তিপণ হিসেবে ১ লক্ষ টাকাও দাবি করা হয়। একই সাথে মেয়ের খোঁজ নিতে গেলে হান্নান শেখকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ্য করা হয়েছে।
মামলার বাদী হান্নান শেখ জানান, এবিষয়ে গত ২২মে জয়কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য রাশেদ স¤্রাট, ৩নং ওয়ার্ডের সদস্য মো. মাবুল ও সংরক্ষিত (১,২,৩) নং ওয়ার্ডের মহিলা সদস্য রওশনারা বেগমের বিরুদ্ধে অপহরণ মামলা করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল নং-৪ এ মামলা নং-১৫৪/২০১৭।
হান্নান শেখ আরও জানান, আদালতের নির্দেশে মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় নবাবগঞ্জ থানা পুলিশকে। পুলিশ ২৭মে মোবাইল ট্রেকিং এর মাধ্যমে আশুলিয়া থেকে পপিকে উদ্ধার করে পুলিশ।
এব্যাপারে ইউপি সদস্য রাশেদ স¤্রাট ও মাবুল জানান, তারা ষড়যন্ত্রের শিকার। কিছুদিন আগের একটি ঘটনার প্রতিশোধ নিতে স্থানীয় মামুন মোল্লা টাকার বিনিময়ে পপির বাবাকে ম্যানেজ করে আমাদের নামে মামলা করেছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নবাবগঞ্জ থানার এসআই আশরাফুল আলম তালুকদার জানান, মামলার পর ভিকটিম পপিকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এরই মধ্যে ভিকটিমের জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে। আসামীদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।



Related posts

মন্তব্য করুন