সর্বশেষ সংবাদ

“দোহারে ‘মিনি পতেঙ্গা’ যেন বাংলার অপরূপ সৌন্দর্যের বাহক”

 

আয়েশা সিদ্দিকীঃ

ঢাকার জেলার ঐতিহ্যবাহী একটি সুপরিচিত ও অর্থনৈতিকভাবে আলোচিত উপজেলার নাম দোহার উপজেলা।রাজনৈতিক স্থিতিশীল এবং ভদ্রসুলভ আচরণগত দিক দিয়েও দেশজুড়ে সুনাম রয়েছে এই দোহারবাসীর।

"দোহারে 'মিনি পতেঙ্গা' যেন বাংলার অপরূপ সৌন্দর্যের বাহক"

ইতিমধ্যে দোহারের মৈনট এলাকা মিনিকক্সবাজার নামে পরিচিত লাভ করেছে। দোহার উপজেলাটি পদ্মা নদী বিস্তৃত একটি উপজেলা। গত কয়েক বছরে মানচিত্র থেকে হারিয়ে গেছে দোহার উপজেলার প্রায় ২০০ গ্রাম। মিনি কক্সবাজার মৈনট ঘাট প্রতিষ্ঠার পর থেকেই দর্শনার্থীদের উপচে পরা ভির যেন চোখে পরার মত। দূর দূরান্ত থেকে আসা পর্যটকরা দোহারের মৈনট ঘাটে যেন খুজে পায় কক্সবাজারে ঘুরার আনন্দ। মনের পরিতৃপ্তির জন্য মানুষ আনন্দের জন্য মানুষ ভ্রমন প্রিয় হয়ে উঠে। মুকসেদপুর থেকে নয়াবাড়ি এইতো প্রানের দোহার। সেই দোহারের পশ্চিম দিকে পদ্মা নদীর তীরে অবস্থিত নয়াবাড়ি ইউনিয়নটি।গত এক বছর আগেও যে ইউনিয়নটি ছিল পদ্মা নদীর ভয়াবহ ভাঙ্গন ও অসহায় মানুষের ভিটে মাটি হারানোর বুক ভাটা কান্না,। অতঃপর ভাঙ্গন রোধের জন্য জরুরি বৈঠকে প্রায় ২১৭ কোটি টাকার বাজেট বিল পাশ হয়। পদ্মা নদীর ভাঙ্গন রোধে ডাম্পিং এর কাজ এখন প্রায় শেষ প্রর্যায়ে, ডাম্পিং এর কাজের শেষের দিক দিয়ে এলাকাটি গড়ে উঠেছে বিনোদনের কেন্দ্রবিন্দ্রু হিসেবে। পদ্মা নদীর তীরে এই ৩ কি:মি এলাকা বালুর বস্তা ডাম্পিং করায় নদীর তীর দিয়ে মানুষ প্রায় ৩ কি:মি এলাকা ঘুরতে পারে। স্থানটিকে আরো আকর্ষনীয় করে তোলার জন্য দোহার নিয়ে গর্বিত এক সন্তান কাতার প্রবাসি ‘আব্দুল মালেক দোহারী’ কোয়াকাটার সাথে তুলনা করে বাহ্রাঘাটকে মিনি পতেঙ্গা নাম করন করেন। আর এর পর থেকেই স্থান টিকে মিনি পতেঙ্গা নামে পরিচিত। অনেকে আবার তাকে ‘বাহ্রাপোর্ট’ নামেও চিনে সন্ধায় সূর্যাস্তের সময় পানির সাথে সূর্যের আলিঙ্গন যেন কোয়াকাটার রূপ ধারন করে। বাংলার এ অপরূপ দৃশ্য মন কারার মত।



Related posts

মন্তব্য করুন