সর্বশেষ সংবাদ

দোহারে সর্প দংশনের দশম শ্রেণীর ছাত্র শান্তকে শেষ চেষ্টা করেও বাঁচানো যায়নি

আবুল হাশেম ফকির।

ঢাকা দোহার উপজেলার কুশুমহাটী ইউনিয়নের সুন্দরীপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর মেধাবী ছাত্র শান্ত সর্প দংশনে মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গিয়াছে। গত ২৯ আগষ্ট রোজ বুধবার সন্ধ্যা ৭/৮ টার সময় স্কুল বন্ধু রাতুলের সাথে শিলাকোঠা মোল্লা বাড়ীর পাশে পুকুরপাড়ে মাছ ধরার উদ্যেশে গেলে পাশের ঝোপ থেকে বিষধর সাপে দংশন করে।

দোহারে সর্প দংশনের দশম শ্রেণীর ছাত্র শান্তকে শেষ চেষ্টা করেও বাঁচানো যায়নি

তার বন্ধু রাতুল 24khobor কে বলেন মাছ ধরার টেটা দিয়া পুকুরপাড় দিয়ে মাছের খোজে হাটছিলাম হঠাৎ বিষাক্ত সাপে পর পর দুইবার শান্তোর পায়ে ছোঁবল মারলে চিৎকার মেরে বলে দেখতো কিসে যেন আমাকে কাঁমড় মেরেছে। তার পর সাপে কাটার সন্ধেহে রশি দিয়া ক্ষত যায়গার উপড়ে বেঁধে পাশের গ্রামের মদন শিকদার নামের এক ওঝার কাছে নিয়ে যাই। তিনি স্বাভাবিক চেষ্টা করে শান্তোর বাবা চঞ্চল ফকিরকে খবর দিলে শান্তকে নিজবাড়ী সুন্দরীপাড়া ফকির বাড়ীতে নিয়া যায়। বাড়ীতে যাওয়ার পর শান্ত বিষের যন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকলে নিকটস্থ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। কর্তব্যরত ডাঃ রোগী আশংকাজনক দেখে একটি ইনজেকশন দিয়ে ঢাকা মেডিকেলে পাঠান। সেখানে নেওয়ার কিছুক্ষণ পর শান্ত মারা যান। এদিকে বাড়ীতে এনে ফিল্মী কায়দায় বিভিন্ন ওঝাগিরি করেও শেষ রক্ষা এবং প্রান ফিরে পায়নি শান্ত। এদিকে এলাকাবাসী বলেন বর্ষার পানি চলে যাওয়ায় বিষাক্ত সাপের উপদ্রব বেড়ে গেছে, এলাকর সবাই ছোট ছোট ছেলেমেয়ে নিয়ে সাপের ভয়ে আতংকে জীবনযাপন করিতেছে।



Related posts

মন্তব্য করুন