সর্বশেষ সংবাদ

“ময়মনসিংহে ১৩ বছর বয়েসী কিশোরীকে বাড়িতে একা পেয়ে গণধর্ষণ”

“ময়মনসিংহে ১৩ বছর বয়েসী কিশোরীকে বাড়িতে একা পেয়ে গণধর্ষণ”

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে গতকাল শুক্রবার জুমআর নামাজের পূর্বে ১৩ বছর বয়েসী এক কিশোরীকে গণ ধর্ষণ করে তিন ধর্ষক। ঘটনাটি ঘটে উপজেলার বারবাড়িয়া ইউনিয়নের পাকাটি গ্রামে। খবর পেয়ে গফরগাঁও থানা পুলিশ ওই কিশোরীকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে গফরগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে ভর্তি করে। এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বারবাড়িয়া ইউনিয়নের পাকাটি গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক বাড়িতে গত প্রায় ৭বছর যাবত পার্শ্ববর্তী বাড়া গ্রামের দরিদ্র সিদ্দিক হোসেনের কিশোরী মেয়ে গৃহপরিচারিকার কাজে আসে। এ অবস্থায় গতকাল শুক্রবার দুপুর সোয়া একটার দিকে গৃহকর্তা আব্দুর রাজ্জাক জুমআর নামাজের জন্য মসজিদে যান। এর আগে গৃহকর্তী আনোয়ারা বেগম নিজের চিকিৎসার জন্য ডাক্তার দেখাতে গফরগাঁও হাসপাতালে আসেন। এ সময় ওই কিশোরী বাড়িতে একা থাকার সুযোগে পাকাটি গ্রামের মৃত রঞ্জিতের ছেলে মাদকাসক্ত দীলিপ(২২), চারিপাড়া গ্রামের দুলালের ছেলে হৃদয়(১৯) ও মাইজহাটি গ্রামের হাফিজ উদ্দিনের ছেলে দুই সন্তানের জনক আসাদুল ওরফে আশুসহ(২৬) ওই কিশোরীকে জোরপূর্বক হাত-পা বেধে গণ ধর্ষণ করে। ওই সময় ধর্ষিতার চিৎকার প্রতিবেশি গৃহবধূ রিক্তা বেগম এগিয়ে এলে ধর্ষকরা পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে গফরগাঁও থানার সেকেন্ড অফিসার সোহেল রানা ও এসআই সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় ধর্ষিত কিশোরীকে উদ্ধার করে গফরগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে ভর্তি করে। আব্দুর রাজ্জাক মাষ্টারের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম বলেন, মেয়েটি আমাদের বাড়িতে ৭বছর যাবত কাজ করছে। গতকাল দুপুরে মেয়েটিকে বাড়িতে একা পেয়ে পাষণ্ডরা পশুর মত অত্যাচার করেছে। আব্দুর রাজ্জাক মাষ্টারের ছোট ভাইয়ের স্ত্রী রিক্তা আক্তার বলেন, ধর্ষণশারীদের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে ওই কিশোরী চিৎকার শুরু করে। পরে আমি এগিয়ে গেলে ধর্ষকরা আমার সামনে দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে গফরগাঁও সার্কেলের সিনিয়র এএসপি বিল্লাল হোসেন বলেন, খবর পেয়ে গফরগাঁও থানার সেকেন্ড অফিসারের নেতৃত্বে ইমার্জেন্সি টিমকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়ে ধর্ষিতাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।
See more @ www.24khobor.com

www.brandbazaarbd.com

 



Related posts

মন্তব্য করুন