সর্বশেষ সংবাদ

কালিয়াকৈরে স্বামীকে গাছে বেঁধে স্ত্রীকে গণধর্ষণ

কালিয়াকৈরে স্বামীকে গাছে বেঁধে স্ত্রীকে গণধর্ষণ
কালিয়াকৈর উপজেলার বোয়ালি ইউনিয়নের কড়ইতলা এলাকায় স্বামীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার রাতে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ কয়েকজন মাতব্বর সালিশের নামে গণধর্ষণের ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালালে এলাকাবাসীর মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।
এলাকাবাসী ও ধর্ষিতা সূত্রে জানা গেছে, রবিবার রাতে গাজীপুরের কোনাবাড়ী এলাকা থেকে ঐ মহিলাকে নিয়ে তার স্বামী কালিয়াকৈর উপজেলার রামচন্দ্রপুর এলাকায় আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছিলেন। অটোরিকশা- যোগে যাওয়ার পথে রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার মৌচাক-ফুলবাড়িয়া সড়কের বান্দর মার্কেট এলাকায় পৌঁছলে একটি পিকাপভ্যান নিয়ে স্থানীয় শহিদুল ইসলাম, রশিদ মিয়া, আমিনুর ইসলাম, মেহেদী নামে চার বখাটে তাদের পিছু নেয়। পরে উপজেলার কড়ইতলা এলাকায় অটোরিকশার গতিরোধ করে তারা। এরপর বখাটেরা অস্ত্রের মুখে তাদের কাছ থেকে টাকা-পয়সা, মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়। পরে অটোরিকশা চালক ও ঐ মহিলার স্বামীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে ফেলে। এরপর ঐ মহিলাকে চার বখাটে উপর্যুপরি ধর্ষণ করে। পরে স্বামীর চিত্কারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে ধর্ষকরা পিকআপ ভ্যানযোগে পালিয়ে যায়।পরে স্বামী-স্ত্রী ও অটোরিকশা চালককে উদ্ধার করে আত্মীয়ের বাড়িতে পৌঁছে দেয় এলাকাবাসী। বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ এলাকার মাতব্বরদের জানালে তারা ওই চার বখাটেকে খুঁজে বের করেন। ঘটনাটি মীমাংসার জন্য মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বোয়ালি ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আলালউদ্দিন, গ্রাম্য মাতব্বর বাহারউদ্দিন, আকবর আলী, মোহাম্মদ আলীসহ অর্ধশতাধিক গ্রামবাসী চার বখাটেকে  হাজির করে স্থানীয় ফজলউদ্দিনের বাড়িতে সালিশে বসেন। সালিশে চার ধর্ষককে ৬ হাজার টাকা ও ৫টি করে বেত্রাঘাত শাস্তি প্রদানের সিদ্ধান্ত হয়। সালিশের সিদ্ধান্ত শুনে এলাকার লোকজন তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে। খবর পেয়ে কালিয়াকৈর থানার ওসি আব্দুল মোতালেব মিয়া ইউপি সদস্য আলালউদ্দিনকে ফোন করে সালিশে বিষয়টি মীমাংসা না করে অভিযোগকারীদের থানায় যেতে পরামর্শ দেন। আলালউদ্দিনও সে মোতাবেক অভিযোগকারীদের থানায় যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে সালিশের সমাপ্তি ঘোষণা করেন। কালিয়াকৈর থানার ওসি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ধর্ষকদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরসহ প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে ।


Related posts

মন্তব্য করুন