সর্বশেষ সংবাদ

তনুর লাশ উত্তোলনে পরিবারের অসন্তোষ

তনুর লাশ উত্তোলনে পরিবারের অসন্তোষ
তনুর লাশ উত্তোলন নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন তার পরিবার। তাদের বক্তব্য, ‘প্রথমে গুরুত্ব দিয়ে লাশের সুরতহাল এবং ময়নাতদন্ত করলে এখন লাশ নিয়ে টানা-হেচড়া করতে হতো না।’

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ছাত্রী ও নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনুর হত্যাকান্ডের ৮ দিন পর সোমবার পুন: ময়নাতদন্ত করতে কবর থেকে লাশ উত্তোলনের আদেশ দিয়েছে কুমিল্লার একটি আদালত। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) ওসি একেএম মনজুর আলমের আবেদনের প্রেক্ষিতে সোমবার বিকেলে আদালত এ আদেশ দেন।   নির্দেশ দেওয়ার পর থেকে তনুর কবরের পাশে পাহারায় রয়েছে একদল পুলিশ। লাশ উত্তোলনের জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে কুমিল্লা সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা লুৎফুন নাহারকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।   তনুদের গ্রাম মির্জাপুরে অবস্থান করা তার চাচা আলাল হোসেন বলেন, ‘মৃত্যুর পরেও মেয়েটিকে কষ্ট দেয়া হচ্ছে। লাশ নিয়ে টানাটানি করা হচ্ছে। প্রথমে গুরুত্ব দিয়ে লাশের সুরতহাল এবং ময়নাতদন্ত করলে এখন লাশ নিয়ে টানা-হেচড়া করতে হতো না।’   সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা লুৎফুন নাহার বলেন, ‘আমি প্রস্তুত রয়েছি। নির্দেশনা পেলে লাশ উত্তোলন করা হবে। মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত কোনো নির্দেশনা পাইনি। আজ মঙ্গলবার বা কাল বুধবার লাশ উত্তোলন হতে পারে।’   এদিকে মঙ্গলবার সকাল থেকে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ তনু মঞ্চে অপরাধীদের শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা।   এ ছাড়া ভিক্টোরিয়া কলেজ কর্তৃপক্ষ তনুর আত্মার মাগফেরাত কামনায় কলেজে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেছে।   পরিবারের সূত্র জানায়, গত ২০ মার্চ রাতে তনুকে সেনানিবাস এলাকায় হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। ২১ মার্চ সন্ধ্যায় তনুকে তাদের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার মির্জাপুর গ্রামে দাফন করা হয়। এ বিষয়ে তার পিতা কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের অফিস সহকারী ইয়ার হোসেন ২১মার্চ অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনার ৯দিনেও পুলিশ অপরাধীদের শনাক্ত করতে পারেনি।

দুই কিশোরী গণধর্ষণের শিকার, এক ধর্ষককে গণধোলাই 138697_1 জামালপুর: জামালপুরের সদরের ঝাউলা গোপালপুরে গণধর্ষনের শিকার হয়েছে দুই কিশোরী। এঘটনায় এক ধর্ষককে আটক করে গণধোলাই দিয়েছে এলাকাবাসী। জানা গেছে, ১২ ও ১৩ বছর বয়সের দুই কিশোরী সোমবার বিকেলে লাহিড়ীকান্দা বাজারে মেলা দেখতে যায়। মেলায় চরকিতে চড়ে দুই কিশোরী অসুস্থ বোধ করছিল। এ সময় কয়েকজন যুবক দুই কিশোরীকে নেশার ট্যাবলেট মেশানো কোমল পানীয় খাইয়ে অচেতন করে অটোরিক্সায় তুলে অপহরণ করে। গভীর রাতে নান্দিনায় এলাকার একটি ধানক্ষেতে দুই কিশোরীকে গণধর্ষণ করে পালিয়ে যাবার সময় এলকাবাসী বিষয়টি টের পেয়ে রেজাউল নামে এক ধর্ষককে আটক করে গণধোলাই দেয়। আজ মঙ্গলবার ভোররাতে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ওই দুই কিশোরী ও ধর্ষক রেজাউলকে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে গ্রামবাসী। সিভিল সার্জন ডা: মোশায়ের উল ইসলাম রতন জানিয়েছেন, ধর্ষিতা দুই কিশোরীর চিকিৎসায় প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ধর্ষণ বিষয়ে ডাক্তারী পরীক্ষা করে এবিষয়ে রিপোর্ট দেয়া হবে। জামালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল আউয়াল জানিয়েছেন, এঘটনায় মামলা দায়ের ও অন্যান্য ধর্ষককে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। - See more at: http://amarbangladesh-online.com/%E0%A6%A6%E0%A7%81%E0%A6%87-%E0%A6%95%E0%A6%BF%E0%A6%B6%E0%A7%8B%E0%A6%B0%E0%A7%80-%E0%A6%97%E0%A6%A3%E0%A6%A7%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%A3%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B6%E0%A6%BF%E0%A6%95/#sthash.psazEBoX.dpuf


Related posts

মন্তব্য করুন